1. admin@manirampurprotidin.com : admin :
  2. hnurul146@gmail.com : nurul :
  3. titonews24@gmail.com : Tito :
শিরোনাম :
অল ইউরোপিয়ান বাংলা প্রেসক্লাবের ভার্চুয়াল সাধারণ সভা অনুিষ্ঠত : অভিষেকের প্রস্তুতি হাইকোর্টের নির্দেশে কেশবপুরে অবৈধ “রোমান ব্রিকস” ভেঙ্গে দিল প্রশাসন মাদ্রিদে হবিগঞ্জবাসীর মিলন মেলায় মুখরিত লাভপিয়েছ মণিরামপুরের জুড়ানপুর বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষককে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষরে বাঁধা মালিতে জাতিসংঘ শান্তিপদক পেলেন বাংলাদেশের ১৩৯ জন শান্তিরক্ষী কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মণিরামপুরে সাংবাদিক পুত্র মাহির গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ মণিরামপুরে ইকবালকে কমিটি গঠন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ : রোহিতার আহ্বায়ক বহিষ্কার মণিরামপুরে ২দিন ব্যাপি ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার শুভ উদ্বোধন মণিরামপুরে গ্রাম ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় স্কুল ছাত্রীর হাতে পঁচন ।। আদালতে মামলা

অর্থ কি ফেসবুকে Like, Recommend, Share বাটনের

  • আপডেট: শনিবার, ১৪ মার্চ, ২০১৫
  • ৩২৫ দেখেছেন

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে ফেসবুক কোনো ঘটনা বা স্ট্যাটাসের ব্যাপারে নিজস্ব প্রতিক্রিয়া জানানোর কিছু প্রতীকী বাটন যুক্ত করেছে। এর মধ্যে Share, Like সবচেয়ে পুরনো।
ব্যবহারকারীদের চাহিদা বিবেচনায় পরে ডিসলাইক বাটনটিও আনার কথা ভেবেছিলেন মার্ক জুকারবার্গ কিন্তু পরে তা নাকচ করে দিয়েছেন। এতো গেল একেবারে ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রে স্ট্যাটাস, কমেন্ট বা যেকোনো কন্টেন্টের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানানোর ব্যাপার। কিন্তু অন্য কোনো ওয়েবসাইট বা বিশেষ করে যারা তথ্য সরবরাহের কাজ করে যেমন: পত্রিকা তাদের ক্ষেত্রে শুধু এই লাইক আর শেয়ার বাটন যথেষ্ট নয়। এমনকি কখনো কখনো উপযুক্তও নয়। যেমন: নিউজ ওয়েবসাইট থেকে যখন শোকের সংবাদ ফেসবুক পাতায় পোস্ট করা হয় তখন পাঠকরা এতে লাইক (Like) দিতে বিব্রতবোধ করেন। এ নিয়ে এযাবৎ বহু পাঠক হাস্যরস এবং একইসাথে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। কারণ মৃত্যু সংবাদে লাইক দেয়াটা নিশ্চয়ই কারো কাছে পছন্দনীয় হবে না। ঠিক এই কারণেই ফেসবুক Recommend নামে একটি বাটন নিয়ে এসেছে। শোক সংবাদ বা খারাপ খবরে পাঠক লাইক দিতে বিব্রতবোধ করলে খবরটি বন্ধুকে পড়ার জন্য পরামর্শ দিতে পারে। আর এ জন্যই আজকাল অনলাইন পত্রিকাগুলো Like এর বদলে Recommend
বাটনটি বেছে নিচ্ছে। ওয়েব প্রোগ্রামাররা যখন তাদের ওয়েবসাইটে ফেসবুক Like/Recommend বাটন এমবেড করতে চান তখন তাদের দুটির Facebookকোনো একটি বেছে নেয়ার সুযোগ দেয়া হয়। আর সঙ্গত কারণেই এখন অনলাইন নিউজ সাইটগুলোর প্রোগ্রামাররা নিরপেক্ষ চরিত্রের Recommend বাটনটিকেই বেছে নিচ্ছেন। প্রোগ্রামের দিক থেকে Like এবং Recommend বাটনের মধ্যে মূলত কোনো পার্থক্য নেই। ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রেও এদু’টোর আলাদা কোনো অর্থ নেই। এখানে লাইক দিয়ে বন্ধুদের না জানানোর বদলে রিকমেন্ড করে তাদের পড়তে পরামর্শ দেয়া হয় মাত্র। ফলে যেকোনো ধরনের সংবাদে (স্টে) বাটনটি ব্যবহার করা যায়। অন্যদিকে Share বাটনটি আসলে Like এবং Recommend বাটনের অগ্রজ। বিশেষ করে নিউজ সাইটগুলোর ক্ষেত্রে এর ব্যবহার অনেক কমে গেছে। হয়তো একসময় থাকবেই না। সামাজিক যোগাযোগের বিশ্লেষকদের মতে, শেয়ার বাটন নতুন বাটনগুলোর সাথে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারছে না। এটি ক্রমেই জনপ্রিয়তা হারাচ্ছে। এর প্রধান কারণ, ব্যবহারকারীদের অনুভূতিতে পার্থক্য। যেমন: শেয়ার করাটা অনেকটা কাজ করার মতো আর লাইক বা রিকমেন্ড করা যেন একটা খেলা যা অক্লেশে উপভোগ্য।


এ খবর টি সোস্যাল মিডিয়াতে এ পোষ্ট করুন

এ জাতীয় আরও খবর




© All rights reserved © 2013-2022