1. admin@manirampurprotidin.com : admin :
  2. hnurul146@gmail.com : nurul :
  3. titonews24@gmail.com : Tito :
শিরোনাম :
অল ইউরোপিয়ান বাংলা প্রেসক্লাবের ভার্চুয়াল সাধারণ সভা অনুিষ্ঠত : অভিষেকের প্রস্তুতি হাইকোর্টের নির্দেশে কেশবপুরে অবৈধ “রোমান ব্রিকস” ভেঙ্গে দিল প্রশাসন মাদ্রিদে হবিগঞ্জবাসীর মিলন মেলায় মুখরিত লাভপিয়েছ মণিরামপুরের জুড়ানপুর বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষককে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষরে বাঁধা মালিতে জাতিসংঘ শান্তিপদক পেলেন বাংলাদেশের ১৩৯ জন শান্তিরক্ষী কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মণিরামপুরে সাংবাদিক পুত্র মাহির গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ মণিরামপুরে ইকবালকে কমিটি গঠন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ : রোহিতার আহ্বায়ক বহিষ্কার মণিরামপুরে ২দিন ব্যাপি ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার শুভ উদ্বোধন মণিরামপুরে গ্রাম ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় স্কুল ছাত্রীর হাতে পঁচন ।। আদালতে মামলা

মনিরামপুরে আতংকে শিক্ষার্থীরা পাঠদান করছে খোলা আকাশের নিচে 

  • আপডেট: রবিবার, ৯ আগস্ট, ২০১৫
  • ৩১৯ দেখেছেন

যশোরের মনিরামপুর উপজেলার পাতন দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা খোলা আকাশের নীচে বসে পাঠদান করছে। মাদ্রাসার ভবন ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় শিক্ষার্থীরা আতংকে শ্রেণিকক্ষে বসে পাঠদান করতে অনিহা প্রকাশ করছে। তাদের বার্ষিক পরীক্ষার সিলেবাস শেষ করার জন্য বর্তমান বর্ষার মৌসুমেও তারা কোন উপায় অন্ত না পেয়ে মাদ্রাসার মাঠে খোলা আকাশের নিচে বসে পাঠদান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এহেন অবস্থার মধ্যে এলাকার সচেতন অভিভাবক মহল তাদের ছেলে-মেয়েদের মাদ্রাসায় পাঠানো প্রায় বন্ধ করে দিয়েছেন। ভুক্তোভোগী মহল মাদ্রাসার পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জন্য প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশুদৃষ্টি কামনা করেছেন। school
মাদ্রাসা সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ১৯৮৬ সালে প্রতিষ্ঠিত ওই মাদ্রাসায় শিক্ষা-প্রকৌশল অধিদপ্তর ১৯৯৪ সালে আট লক্ষ টাকা ব্যয়ে তিন কক্ষ বিশিষ্ট একটি ভবন নির্মাণ করা হয়। অভিযোগ রয়েছে সে সময় নির্মান ত্রুটি ছাড়াও ওই ভবনের সিঁড়ি না থাকায় ছাদের রক্ষনাবেক্ষন ঠিকমত করা সম্ভব হয়নি। বর্ষার মৌসুমে ছাদে পানি জমে থাকায় এখন পুরো ভবনটি প্রায় ধ্বংসের দারপ্রান্তে। একটু বর্ষা নামলেই ছাদ দিয়ে হড় হড় করে পানি পড়া শুরু করে। এতে মাদ্রাসার অনেক মূল্যবান কাগজপত্রও পানিতে ভিজে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ফলে সেখানে পাঠদান সহ মাদ্রাসর সকল কার্য্যক্রম করা একেবারেই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে।  মাদ্রাসার সুপার মহসিন আলী এ প্রতিবেদককে জানান, এ মাদ্রাসায় বিজ্ঞান বিভাগসহ অন্যান্য শাখা মিলে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২৮০ জন এবং শিক্ষক/কর্মচারী কর্মরত রয়েছেন ১৯ জন। তিনি আরও বলেন এমন পরিস্থিতির মধ্যে মাদ্রাসার শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও কর্মচারীরা সব সময় আতংঙ্কগ্রস্ত থাকে ভবনটি নিয়ে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অভিভাবক জামাল আহম্মেদ অত্যান্ত দুঃখের সাথে আক্ষেপ করে বলেন, আমরা মাদ্রাসায় সন্তানদের পাঠিয়ে গভীর চিন্তায় থাকি কখন কোন দূর্ঘটনা ঘটে।  ম্যানেজিং কমিটির সদস্য রবিউল ইসলাম বলেন, খুব দ্রুত ওই ভবনের ছাদ সংস্কার এবং নতুন করে ভবন নির্মাণ করা না হলে এ এলাকার অভিভাবকরা তাদের ছেলে-মেয়েদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করতে খুব বিড়ম্বনায় পড়বে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি নিস্তার ফারুক জানায়, শ্রেনিকক্ষ খুবই ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ওই ভবন সংস্কার বা নতুন ভবন না হওয়া পর্যন্ত মাঠে বসে পাঠদান করানো হবে। তবে স্থানীয় সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য্য বলেন, মাদ্রাসার সমস্যার কথা আমি শুনেছি। ফলে শিক্ষার্থীদের পড়া-লেখার ক্ষতি বিবেচনা করে দ্রুত মাদ্রাসাটির ভবন সংস্কার করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করা হচ্ছে।


এ খবর টি সোস্যাল মিডিয়াতে এ পোষ্ট করুন

এ জাতীয় আরও খবর




© All rights reserved © 2013-2022