1. admin@manirampurprotidin.com : admin :
  2. hnurul146@gmail.com : nurul :
  3. titonews24@gmail.com : Tito :
শিরোনাম :
কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মণিরামপুরে সাংবাদিক পুত্র মাহির গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ মণিরামপুরে ইকবালকে কমিটি গঠন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ : রোহিতার আহ্বায়ক বহিষ্কার মণিরামপুরে ২দিন ব্যাপি ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার শুভ উদ্বোধন মণিরামপুরে গ্রাম ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় স্কুল ছাত্রীর হাতে পঁচন ।। আদালতে মামলা মণিরামপুরে সাবেক অধ্যক্ষ মাওলানা বজলুর রহমানের ইন্তেকাল আয়েবাপিসি’র সাধারন সম্পাদক বকুল খানকে যুক্তরাজ্যে বিভিন্ন সংগঠনের সংবর্ধনা সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ সচিবের প্রকাশ্যে ঘুষ গ্রহন মণিরামপুর জুয়েলারী সমিতি পক্ষ থেকে কাউন্সিলর বাবুলাল চৌধুরীকে সংবর্ধনা মণিরামপুরের শীর্ষ ব্যবসায়ী রতন পালের স্ব-পরিবারে ভারত পাড়ি! কিন্তু কেন ?

মণিরামপুরে ভিক্ষুকের তালিকায় স্বচ্ছল আওয়ামীলীগ নেতা ও ব্যবসায়ীর নাম : নানা গুঞ্জন

  • আপডেট: শনিবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৬
  • ৩০৩ দেখেছেন

বিশেষ প্রতিনিধি ঃ
মণিরামপুরে ভিক্ষুকের তালিকায় স্বচ্ছল ব্যাক্তির নাম স্থান পেলেও যারা প্রকৃত ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবিকা অর্জন করে তাদের নামের কোন তালিকা হয়নি। যোগ্যদের বাদ দিয়ে কিভাবে তালিকা করা হলো তা জানাতে পারেননি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিগণ। তালিকায় রয়েছে স্বচ্ছল আওয়ামীলীগ নেতার নাম। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় ব্যাপক গুঞ্জনের সৃস্টি হয়েছে।
সুত্রমতে, সম্প্রতি খুলনা বিভাগকে ভিক্ষুক মুক্ত করার ঘোষনা দেন বিভাগীয় কমিশনার আব্দুস সামাদ। সেই অনুযায়ী তালিকা চাওয়া হয় বিভাগের সব উপজেলায়। মণিরামপুর উপজেলা প্রশাসন ১৭ টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা এলাকার ৮৭১ জন ভিক্ষুকের তালিকা প্রস্তুত করে। তার মধ্যে খেদাপাড়া ইউনিয়নের তালিকায় রয়েছে ৯৭ জন ভিক্ষুকের নাম।
সম্প্রতি ইউএনও মনিরামপুরের ফেসবু আইডিতে পাওয়া ভিক্ষুকের তালিকার সুত্র ধরে খেদাপাড়া ইউনিয়নের ৯৭ জন ভিক্ষুকের মধ্যে অনুসন্ধানে দেখা গেছে জালালপুর গ্রামের একই পরিবারের তিন ব্যক্তির নাম তালিকায় স্থান পেয়েছে। এরা হলেন, জালালপুর গ্রামের হানেফ আলী গাজী, কামরুল ও ইসহাক গাজীর স্ত্রী রাবেয়া খাতুন। সেখানে উল্লেখ আছে এই তিনজন প্রয়োজনে ভিক্ষা করেন। হানেফ গাজী, কামরুল ও ইসহাক সম্পর্কে চাচা ভাইপো।
স্থানীয়রা জানান, হানেফ গাজী সাবেক ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি। তিনি তার ওয়ার্ড থেকে মেম্বর প্রার্থী হিসাবে একবার নির্বাচনও করেছেন। তাছাড়া তার দুই ছেলে রেজাউল ও আমিনুর বিদেশে থাকেন। আর ইসহাক স্থানীয় ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারন সম্পাদক। তার স্ত্রী রাবেয়া গৃহিণী। কামরুল যুবলীগ কর্মী। জালালপুর বাজারে তার মুদি ও চায়ের দোকান আছে।
স্থানীয় ওয়ার্ড আ’লীগের সাধারন সম্পাদক আব্দুল মান্নান জানান, জালালপুর গ্রামের মঞ্জুয়ারা, নাজু, কিরন, তাহেরুন, রহিমা, করিমুন্নেছা, মনি খাতুন ও সবিরুন্নেছাসহ অনেকে ভিক্ষা করে জীবন চালায়। এদের নাম বাদ দিয়ে স্বচ্ছল দলীয় লোকের নাম দেয়া হয়েছে। তবে তালিকা কারা করেছেন সেই ব্যাপারে নিশ্চিত নন তিনি।
জালালপুর ওয়ার্ড মেম্বর মুনসুর আলী জানান, কারা এই তলিকা দিয়েছে, কবে দিয়েছে তার কিছুন তিনি জানেন না। প্রকৃত কোন ভিক্ষুকের নাম তালিকায় আসেনি বলে তিনি দাবি করেন। খেদাপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক জিন্নাহ ওই তিনজনের দলীয় পরিচয় নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, এরা ভিক্ষুক নয়।
এই ব্যাপারে জানতে চাইলে তালিকার ৯৫ সিরিয়ালের ব্যক্তি হানেফ জানান, কারা তালিকায় নাম দিয়েছে তা তিনি জানেন না। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল হাসান বলেন, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের কর্মীরা সরেজমিন বাড়ি বাড়ি গিয়ে তালিকা করেছে। ভূল হওয়ার কথা নয়। তবে তিনি তদন্ত করে সত্যতা পেলে এদের নাম বাদ দেবেন বলে জানান।


এ খবর টি সোস্যাল মিডিয়াতে এ পোষ্ট করুন

এ জাতীয় আরও খবর




© All rights reserved © 2013-2022