ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মণিরামপুরে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যানের ইট ভাটায় হামলা, লুটপাট, ৩টি পৃথক মামলা

Tito
সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯ ৮:৩৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বিশেষ প্রতিনিধি ।।
মনিরামপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আমজাদ হোসেন লাভলু, কাউন্সিলর আবদুর রহমান, আজিম হোসেনসহ দলের ৫৯ জনকে আসামি করে পৃথক তিনটি মামলা করা হয়েছে। বুধবার রাতে মনিরামপুর থানায় গাংড়া গ্রামের অসিত দেবনাথ, বিজয়রামপুর গ্রামের আইয়ুব পাটোয়ারী এবং সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন লাভলু বাদী হয়ে মামলাগুলো করে। পৃথক তিনটি মামলায় হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ আনা হয়েছে।
বাদী আমজাদ হোসেন লাভলুর মামলায় দোনারের আজম, আবদুল গণি, তুহিন, বিজয়রামপুরের আইয়ুব, কামালপুরের আবদুল হালিমসহ ২৬ জনকে এজাহারভুক্ত আসামি করা হয়েছে। এ ছাড়া এ মামলায় অজ্ঞাত আরো রয়েছে ২৪ থেকে ২৫ জন। ইটভাটায় হামলা, ভাংচুর ও মারপিটের অভিযোগ আনা হয়েছে মামলাটিতে। যার ক্ষতির পরিমাণ ২ লক্ষ টাকা বলে দাবী করেছেন।
একই রাতে বিজয়রামপুর গ্রামের আইয়ুব পাটোয়ারী সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন লাভলু, কাউন্সিলর আবদুর রহমান, আবদুল আজিমসহ ১৫ জনকে আসামি করে মামলাটি করে। রাস্তায় আটকিয়ে মারপিট করে জখম করার অভিযোগ আনা হয়েছে এ মামলাতে।
গাংড়া গ্রামের অসিত দেবনাথ একই অভিযোগ তুলে ১৮ জনকে আসামি করে মামলাটি করে। তবে এ মামলাটিতেও কাউন্সিলর আবদুর রহমান ও আজিমকে আসামি করা হয়।
বুধবার রাতে মামলা রেকর্ড করা হলেও পুলিশ কাউকে আটক করতে পারেনি। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক জহির রায়হান, তপন কুমার সিংহ এবং আবদুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, মামলার আসামীদের আটকের জোর চেষ্টা চলছে। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক জানান, আওয়ামীলীগর অভ্যন্তরীন কোন্দলে মনিরামপুরের আওয়ামী লীগ দলীয় লোকজন নিজেরা ক্ষতিগ্রস্থের দিকে এগিয়েছে। দলের অভ্যন্তরীন কোন্দলের জের ধরে দলীয় নেতাকর্মীরা হামালা মামলার শিকার হয়ে জেল হাজতেও যাচ্ছেন। যা আগামি দিনের জন্য আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে ভয়াবহ পরিস্থিতি আসছে।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক প্রভাষক ফারুক হোসেন দলীয় অভ্যন্তরীন কোন্দলের জেরে মামলা হয়েছে এ কথা নাকোচ করে তিনি বলেন, পৃথক তিনটি মামলা হয়েছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা করা নিয়ে। যা কোন ক্রমেই কাম্য নয়। মনিরামপুর থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, মামলার পর সবই পলাতক। তাদের আটকের চেষ্টা চলছে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।