1. admin@manirampurprotidin.com : admin :
  2. hnurul146@gmail.com : nurul :
  3. titonews24@gmail.com : Tito :
শিরোনাম :
অল ইউরোপিয়ান বাংলা প্রেসক্লাবের ভার্চুয়াল সাধারণ সভা অনুিষ্ঠত : অভিষেকের প্রস্তুতি হাইকোর্টের নির্দেশে কেশবপুরে অবৈধ “রোমান ব্রিকস” ভেঙ্গে দিল প্রশাসন মাদ্রিদে হবিগঞ্জবাসীর মিলন মেলায় মুখরিত লাভপিয়েছ মণিরামপুরের জুড়ানপুর বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষককে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষরে বাঁধা মালিতে জাতিসংঘ শান্তিপদক পেলেন বাংলাদেশের ১৩৯ জন শান্তিরক্ষী কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মণিরামপুরে সাংবাদিক পুত্র মাহির গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ মণিরামপুরে ইকবালকে কমিটি গঠন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ : রোহিতার আহ্বায়ক বহিষ্কার মণিরামপুরে ২দিন ব্যাপি ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার শুভ উদ্বোধন মণিরামপুরে গ্রাম ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় স্কুল ছাত্রীর হাতে পঁচন ।। আদালতে মামলা

ভালো আছেন মণিরামপুরে করোনা আক্রান্ত সেই স্বাস্থ্যকর্মী

  • আপডেট: শনিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২০
  • ৫২০ দেখেছেন

তাজাম্মূল হুসাইন, মণিরামপুর থেকে।।
যশোরের মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা পজেটিভ সেই স্বাস্থ্যকর্মী রবিউল ইসলাম ভাল আছেন। গত পাঁচদিন ধরে তার শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিক রয়েছে। তিনি এখন নিজেকে সম্পূর্ণ সুস্থ মনে করছেন। শনিবার সকালে মোবাইল ফোনে এমন তথ্য জানান তিনি।
রবিউল ইসলামের শারীরিক বিষয়ে একই তথ্য দিয়েছেন মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শুভ্রা রানী দেবনাথ।
চলতি সপ্তাহে যে কোন দিন দ্বিতীয় দফা পরীক্ষার জন্য তার নমুনা সংগ্রহের কথা রয়েছে।
গত ১২ এপ্রিল দুপুরে রবিউল ইসলামের করোনা আক্রান্তের খবর আসলে ওইদিন সন্ধ্যায় কেশবপুরের ইমাননগরে শ^শুর বাড়িতে তাকে আইসোলেশনে পাঠান যশোরের সিভিল সার্জনসহ মণিরামপুর ও কেশবপুর উপজেলা প্রশাসন। সেখানে তার চিকিৎসা চলছে। ওইদিন তার শরীরে হালকা তাপমাত্রা ছিল। পরেরদিন থেকে জ¦র সম্পূর্ণরুপে পড়ে গেছে বলে জানা গেছে।
রবিউল ইসলাম বলেন, জ¦র ও গা ব্যাথা নিয়ে আমি হাসপাতালে গেলে ৮এপ্রিল আমার নমুনা সংগ্রহ করান চিকিৎসক ডা. অনুপকুমার বসু। পরে ১২ তারিখ করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসে। রিপোর্ট করানোর সময়ও আমার সর্দি বা কাশি ছিল না। রিপোর্ট যেদিন আসে সেই দিন শরীরে হালকা জ¦র ছিল। তার পরেরদিন থেকে আজ পর্যন্ত (শনিবার) আর জ¦র আসেনি। এখন আমি সম্পূর্ণ সুস্থ। আর গালে ঘা আমার পুরনো রোগ। সেটাও এখন নেই। স্যারেরা বলেছেন, এই সপ্তাহে আবার পরীক্ষা করাবেন।
তিনি বলেন, আমি স্ত্রী, সন্তান, শ^শুর-শাশুড়িসহ ৬ জনকে নিয়ে লকডাউনে আছি। সিভিল সার্জন স্যার, মণিরামপুর ও কেশবপুর উপজেলা প্রশাসন এবং মণিরামপুর হাসপাতালের টিএইচও ম্যাডাম আমার খোঁজ রাখছেন। কেশবপুর উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ আমাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সরবরাহ দিচ্ছেন। আর মণিরামপুরের মশ্মিমনগরের হাজরাকাঠি আমার গ্রামের বাড়িতে পরিবারের সবাই লকডাউনে আছেন। সেখানেও তারা প্রয়োজনীয় সহযোগীতা পাচ্ছেন।
তবে ইমাননগরে লকডাউনে থাকা বাকি দুইটি পরিবার এখনো সরকারি কোন সহযোগিতা পাননি বলে স্থানীয় ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান জানিয়েছেন।
একইভাবে মণিরামপুরের মুজগুন্নি গ্রামে লকডাউনে থাকা প্রায় ২০০ পরিবার এখনো কোন সহযোগিতা পাননি। রোববার (১৯ এপ্রিল) সেখানে কয়েকটি পরিবারকে ত্রাণ দেওয়া হবে বলে জানান ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনি।
এদিকে স্বাস্থ্যকর্মী রবিউল ইসলামের মণিরামপুর হাসপাতাল সংলগ্ন ভাড়া বাড়িতে অসুস্থ এক যুবকের গত বুধবার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। সেই ফলাফলটি করোনা নেগেটিভ বলে মৌখিকভাবে জেনেছেন হাসপাতাল প্রধান ডা. শুভ্রা রানী। সেই যুবকও এখন সুস্থ্য রয়েছেন বলে জানিয়েছেন ডা. শুভ্রা।
ডা. শুভ্রা রানী দেবনাথ বলেন, স্বাস্থ্যকর্মী রবিউলের সাথে কথা হচ্ছে। সে ভাল আছে। আর হাসপাতালের পাশের যে যুবকের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে আনুষ্ঠানিকভাবে তার তথ্য এখনো পাইনি। তবে, খবর পেয়েছি তার ফলাফল করোনা নেগেটিভ। এই পর্যন্ত পরীক্ষার জন্য মণিরামপুর হাসপাতালে ২০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে, বলেন ডা. শুভ্রা।


এ খবর টি সোস্যাল মিডিয়াতে এ পোষ্ট করুন

এ জাতীয় আরও খবর




© All rights reserved © 2013-2022