1. admin@manirampurprotidin.com : admin :
  2. hnurul146@gmail.com : nurul :
  3. titonews24@gmail.com : Tito :
শিরোনাম :
অল ইউরোপিয়ান বাংলা প্রেসক্লাবের ভার্চুয়াল সাধারণ সভা অনুিষ্ঠত : অভিষেকের প্রস্তুতি হাইকোর্টের নির্দেশে কেশবপুরে অবৈধ “রোমান ব্রিকস” ভেঙ্গে দিল প্রশাসন মাদ্রিদে হবিগঞ্জবাসীর মিলন মেলায় মুখরিত লাভপিয়েছ মণিরামপুরের জুড়ানপুর বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষককে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষরে বাঁধা মালিতে জাতিসংঘ শান্তিপদক পেলেন বাংলাদেশের ১৩৯ জন শান্তিরক্ষী কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মণিরামপুরে সাংবাদিক পুত্র মাহির গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ মণিরামপুরে ইকবালকে কমিটি গঠন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ : রোহিতার আহ্বায়ক বহিষ্কার মণিরামপুরে ২দিন ব্যাপি ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার শুভ উদ্বোধন মণিরামপুরে গ্রাম ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় স্কুল ছাত্রীর হাতে পঁচন ।। আদালতে মামলা

সাইপ্রাসে পর্যটন শিল্পে ধস : দেড় বিলিয়ন ইউরো ক্ষতির আশংকা

  • আপডেট: সোমবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২০
  • ২৩২ দেখেছেন

মোস্তাইন বিল্লাহ, সাইপ্রাস থেকে।।
দশ হাজার বছরের ইতিহাস আর সভ্যতায় মোড়ানো
পূর্ব ভূমধ্যসাগরীয় অববাহিকায় একটি সমৃদ্ধশালী এবং বৈচিত্র্যময় প্রকৃতির একটি দ্বীপ রাষ্ট্র সাইপ্রাস।
এখানে করোনার তান্ডবে চলতি বছরে পর্যটনখাতে দেড় বিলিয়ন ইউরো ক্ষতির সম্ভাবনা। তবে করোনাভাইরাস যথেস্ট নিয়ন্ত্রণে থাকায় কিছুটা হলেও আশার আলো দেখছেন এখানের পর্যটন ব্যবসায়ীরা।
সাইপ্রাসের পর্যটনখাতের প্রতিমন্ত্রী মনে করেন যে,আমাদের পরিকল্পনা অনুযায়ি জুলাই মাসে সীমিত সংখ্যক পর্যটক দিয়ে আমরা শুরু করতে পারি।
পর্যটন শিল্পের গুরুত্ব বিবেচনায় এ খাতটিকে অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী করার লক্ষে , উপ-মন্ত্রণালয় স্বল্প ও মধ্যমেয়াদী উভয় ক্ষেত্রেই এই খাতকে প্রস্তুত করতে সহায়তা করার পদক্ষেপ নিচ্ছে।
স্থানীয় পর্যটনকে উত্সাহিত করতে ছুটির প্যাকেজ প্রস্তুত করে ইতোমধ্যে এটি নির্বাচিত দেশগুলিতে প্রচার শুরু করেছে।
পর্যটনমন্ত্রী সাভাস পেরদিওস মনে করছেন, যে সাইপ্রাসের অর্থনীতির পর্যটন আয়ের দেড় বিলিয়ন ইউরো ক্ষতির কারণ হলো, সমস্ত বুকিংয়ের ষাট শতাংশ বাতিল হয়ে যাবে।
তবে আমরা কয়েক সপ্তাহের মধ্যে জানতে পারব যখন ব্রিটেন এবং রাশিয়া থেকে সাইপ্রাসে পর্যটকরা আশা শুরু করবে কারণ এ সকল রাস্ট্র থেকে সর্বাধিক পর্যটক আসে।
গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, জার্মানি, সুইজারল্যান্ড, অস্ট্রিয়া, গ্রীস, ইস্রায়েল এবং নেদারল্যান্ডসের ট্রাভেল এজেন্টদের সাইপ্রাস সম্পর্কে ইতিবাচক ধারনা রয়েছে”। এবং তিনি আরো মনে করেন যে এয়ারলাইনসগুলো জুলাইয়ের মধ্য সময়ে আকর্ষণীয় অফার সরবরাহ করবে।এবং এর জন্য আমরা হারমাস বিমানবন্দর, পরিবহন মন্ত্রনালয় এবং বিভিন্ন এয়ারলাইন্সের সাথে টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে অবিচ্ছিন্ন যোগাযোগ করছি।”
করোনাভাইরাস সংকটে ক্ষতিগ্রস্থ পর্যটন হোল্ডারদের আরও সুবিধা দেওয়া হবে,তার জন্য একটি বিল তৈরি করা হচ্ছে যা হোটেলবাসী এবং ট্যুর অপারেটররা তাদের ক্লায়েন্টদের সরকার সমর্থিত ভাউচার দেওয়ার সুযোগ দেবে যারা তাদের সাইপ্রাস ভ্রমণ বাতিল করতে বাধ্য হয়েছিল।
সাইপ্রাসের ট্র্যাভেল এজেন্টরাও যথেস্ট আশাবাদী কারণ বেশিরভাগ বুকিং এখনও বাতিল হয়নি।এবং সাইপ্রাস ট্র্যাভেল এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশন (এসিটিএ)এই বুকিংগুলি যেন বাতিল না হয় সেজন্য সাধ্যমত চেষ্টা করছে।
ফিনান্সিয়াল মিররটির সাথে আলাপকালে, আইসিটিএর চেয়ারম্যান ভ্যাসিলিস স্টামতারিস বলেন, সেপ্টেম্বরের শেষের দিকের বুকিং বাতিল করা ট্যুর অপারেটর এবং অন্যান্যদের বোঝানোর চেষ্টা করছে।
স্টামাতারিস বলেছেন যে গ্রীসের প্রতি জোর দেওয়া হচ্ছে, কারণ দু’দেশের মধ্যে কয়েকটি স্তরের নৈকট্য এবং সম্পর্ক উভয় পথেই পর্যটকদের প্রবাহকে সহজতর করবে।
স্ট্যামতারিস বলেছেন, গ্রিসে ভাইরাসের প্রভাব সাইপ্রাসের মত একই স্তরে এবং আমরা উভয়ে ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছি।
ফিনান্সিয়াল মিররকে দেওয়া মন্তব্যে, সাইপ্রাস ট্যুরিস্ট এন্টারপ্রাইজস (এসিটিই) এর বিশেষ উপদেষ্টা অ্যাঞ্জেলস লোইজউ বলেছেন যে হোটেল ব্যবসায়ীরা এই সঙ্কট কাটিয়ে নতুন করে তাদের কার্যক্রম শুরু করার জন্য বিশেষভাবে উদ্বিগ্ন।
অ্যাঞ্জেলস লইজউ আরো বলেছেন যে, ইতিমধ্যে যে সকল হোটেলব্যবসায়ী তাদের হোটেল খোলার সিদ্ধান্ত নেবেন তারা স্থানীয় পর্যটকদের আকর্ষন করতে পারবেন, কারণ এখানে প্রচুর সংখ্যক সাইপ্রিয়ট পর্যটক আছে। আর এটি তাদের দুটি উপায়ে উপকৃত করবে। একটি তারা তাদের ব্যবসা কিছুটা চালিয়ে যেতে সক্ষম হবে এবং দ্বিতীয়ত, তারা কীভাবে তাদের হোটেলগুলি নতুন এ পরিস্থিতির মধ্যে সঠিক কার্যক্রম চালিয়ে নিতে সক্ষম সেটা জানার সুযোগ পাবে।
উল্লেখ্য ২০১৯ সালে সাইপ্রাসে মোট পর্যটকের রেকর্ড ছিল ৩৯৭৬৭৭৭ জন। এবং মোট আয় ছিল ২.৭১ বিলিয়ন ইউরো।


এ খবর টি সোস্যাল মিডিয়াতে এ পোষ্ট করুন

এ জাতীয় আরও খবর




© All rights reserved © 2013-2022