1. admin@manirampurprotidin.com : admin :
  2. hnurul146@gmail.com : nurul :
  3. titonews24@gmail.com : Tito :
শিরোনাম :
কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মণিরামপুরে সাংবাদিক পুত্র মাহির গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ মণিরামপুরে ইকবালকে কমিটি গঠন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ : রোহিতার আহ্বায়ক বহিষ্কার মণিরামপুরে ২দিন ব্যাপি ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার শুভ উদ্বোধন মণিরামপুরে গ্রাম ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় স্কুল ছাত্রীর হাতে পঁচন ।। আদালতে মামলা মণিরামপুরে সাবেক অধ্যক্ষ মাওলানা বজলুর রহমানের ইন্তেকাল আয়েবাপিসি’র সাধারন সম্পাদক বকুল খানকে যুক্তরাজ্যে বিভিন্ন সংগঠনের সংবর্ধনা সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ সচিবের প্রকাশ্যে ঘুষ গ্রহন মণিরামপুর জুয়েলারী সমিতি পক্ষ থেকে কাউন্সিলর বাবুলাল চৌধুরীকে সংবর্ধনা মণিরামপুরের শীর্ষ ব্যবসায়ী রতন পালের স্ব-পরিবারে ভারত পাড়ি! কিন্তু কেন ?

লাব্বাইক, আল্লাহুম্মা লাব্বাইক – আরাফার ময়দানে

  • আপডেট: বৃহস্পতিবার, ৩০ জুলাই, ২০২০
  • ২৬৬ দেখেছেন

মো: মনিরুজ্জামান।।
সময়টা ২০১৮ সালের জিলহজ্ব মাসের ৯ তারিখ। রাব্বুল আলামিনের অশেষ কৃপায় বাংলাদেশী হাজীদের খেদমতের জন্য সরকার ঘোষিত প্রশাসনিক দলের সদস্য হিসাবে এ অধমেরও সুযোগ হয়েছিল আরাফার পবিত্র প্রান্তরে হাজির থাকার।
৭ জিলহজ্জই বাংলাদেশের লক্ষাধিক হাজি সাহেবদেরকে পবিত্র মক্কা থেকে মিনা আরাফায় যাবার ব্যবস্থা করা হয়েছিল মুআল্লিম, বাংলাদেশ হজ্জ মিশন ও হজ্জ এজেন্টদের সহায়তায়। আমাদের কাজছিল পুরোপ্রক্রিয়াটি দেখভাল করা। আমরা সাধ্যমত হাজী সাহেরানদের খেদমত করার সে চেষ্টা করেছি পরিপূর্ণ আন্তরিকতার সাথেই।
সকল বাংলাদেশী হাজী সাহেবদের মিনা আরাফার উদ্দেশ্যে যাত্রার পর আমরা হজ্জ প্রতিনিধি দলের সদস্যরা মাননীয় মন্ত্রী এবং সচিব মহোদয়ের নেতৃত্বে রওয়ানা হই মিনা আরাফার উদ্দেশ্যে। সে এক অভূত পূর্ব দৃশ্য। লাখো হাজী সাহেব নানা দেশের বর্ণের, ভাষার সব পুরুষের শরীরেই সাদা এহরাম, মুখের ভাষা একই, “লাব্বাইক, আল্লাহুম্মা লাব্বাইক”।
বলছি ৯ জিলহাজের কথা। সরকারী টিমের সদস্য হিসাবে আমাদের গতিবিধি অনেকটাই স্বাধীন ছিল। ৭ জিলহজ্জ গিয়ে দেখে এসেছিলাম আরাফায় আমাদের তাবু কোথায়, বাংলাদেশী হাজী সাহেবদের অন্যান্যদের তাবু কোথায় ইত্যাদি। সৌভাগ্য বশতঃ জাবেলে রাহমাতের নিকটবর্তী স্থানেই আমাদের তাবু হয়।
আশেপাশে বেশ কিছু গাছ থাকায় আবহাওয়া আপেক্ষকৃত কম উষ্ণ ছিল। সৌদি সরকারের বদান্যতায় তাবুতে এসি সহ অন্যান্য উপকরনও ছিল। ভাবছিলাম কত শত বছর আগে রাসুলুল্লাহ (সা:) এখানে মাটির পাত্রে সামান্য পানি সম্বল করে, সামান্য খাবার সঞ্চয় করে এই মরু প্রান্তরে হজ্জ করেছেন, সমবেত অনুসারিদের উদ্দেশ্যে এখানেই বিদায় হজ্জের ভাষন দিয়েছিলেন রাসুলে করিম (সঃ)।
এর আশেপাশেই বাব্বুল আলামিন হযরত আদম এবং মা হাওয়াকে ক্ষমা করে আবার মিলন ঘটিয়ে ছিলেন।
মূল প্রসংগে আসি। ৯ ই জিলহজ্জ, আরাফার দিন। বলা হয়ে থাকে সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্য্যন্ত যেকোন একটি মুহুর্তের মধ্যে যদি কোন বান্দা মুহুর্ত মাত্রের জন্যও আরাফার ময়দানে উপস্থিত থাকে ক্ষমা চায় তাহলে রাব্বুল আলামিন সামান্য কিছু শর্ত সাপেক্ষে তাকে ক্ষমা করে নিষ্পাপ শিশুর মত করে দেন।
আমি পাপী তাপী বান্দা। আমাকেও মাবুদ তার অসীম কৃপায় সে সৌভাগ্য দিয়েছিলেন আরাফাার ময়দানে উপস্হিত থাকার,ক্ষমা চাওয়ার। মাবুদের প্রতি বার বার সিজদা দিতে থাকি সে সৌভাগ্য স্মরণে।
আমরা ভাগ্যবান এ অর্থে যে পবিত্র হজ্জের এ আনুষ্ঠানিকতায় আমাদের সাথে মন্ত্রী, সচিব, ভিআইপিদের পাশাপাশি দেশবরেন্য কিছু আলেমও ছিলেন। তার মধ্যে অন্যতম শোলকিয়ার ইমাম প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ সাহেব অন্যতম। কি এক বিচিত্র কারনে উনি আমাকে অসীম স্নেহ করেন।
৯ই জিলহজ্জ, আরাফার দিন পার হয়ে যাচ্ছে। দোয়া দরূদ যা জানি পড়ছি, কান্নাকাটি করছি, মাফ চাচ্ছি। আবার কোন দিন এ সৌভাগ্য হবে কিনা জানিনা ভেবে মাবুদের রহমত, মাগফিরাত নাজাত কামনা করছি। মন পুরোপুরি শান্ত হচ্ছেনা, ভাবলাম আমাদের তাবুতে সব পরিচিত মানুষ জন-হয়তো মন খুলে কাঁদতেও পারছিনা সংকোচে।
আমার ঘনিষ্ঠ সাথীদের মধ্যে যারা ছিলেন তাদের কাউকে কিছু না বলে অন্য দিকে হাঁটা দিলাম। উদ্দেশ্য আমাকে কেউ চিনেনা এমন জায়গায় গিয়ে মাবুদের করুনা চাইব।জাহান্নামের আগুন থেকে নিজের, বাবা মা,স্ত্রী পুত্র পরিবার,আত্মীয়স্বজন,বন্ধুবান্ধব পরিচিত পরিজনদের জন্য জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্তি চাইব,দোয়া করব,নাজাত চাইব,মাগফিরাত কামনা করব।
সময়তো শেষ হয়ে যাচ্ছে, আছরের সময় হয়ে যাচ্ছে, আরতো মাত্র কিছুক্ষন। বেশ কিছু দূর গেলাম। শ্রীলংকানদের তাবুর পাশে গিয়ে দেখলাম অশীতিপর এক বৃদ্ধ সম্ভবত শ্রীলংকানই হবেন একটা গাছকে আকড়ে ধরে হাউমাউ করে কাঁদছেন, আলু-থালু বেশ, এলোমেলো কেশ। কেন যেন মনে হল এই ভদ্রলোকের দোয়া কবুল হবে। আল্লাহপাক তো এমনি করেই কাঁদতে বলেছেন আরাফার ময়দানে। দীন বেশে, এলোমেলো চেহারার আলু-থালু বেশে।
সকল অহং চূর্ণ করে রাব্বুল আলামিনের কাছে কমপ্লিট সারেন্ডারই তো হজ্জের শিক্ষা। আমিও দীনহীন হয়ে সকল অহং আত্মপরিচয় ভুলে আল্লাহর কাছে কমপ্লিট সারেন্ডার করলাম। সেজদা করলাম। পরম তৃপ্তি পেলাম। মনে হল রাব্বুল আলামিন আমার হজ্জ কবুল করেছেন। ৪৮ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায়ও মনে হল একটা শীতল বাতাশ আমার শরীরে খেলে গেল। ইয়া রাহমানুর রাহিম,ইয়া পরোয়ারদিগার আপনি দয়ার সাগর।
শান্ততৃপ্ত মন নিয়ে ফিরে এলাম আমাদের তাবুতে। তখন আসরের জামাতের প্রস্তুতি চলছে। ইমামতি করলেন মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসুদ সাহেব। নামাজ শেষ হল। প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রসচিব,বর্তমানে দুদকের কমিশনার মোজাম্মেল হক স্যারের পাশেই বসা ছিলাম আমি, সাথে হুজুরের ছাত্র মাওলানা আলিম ফরিদী। আওয়ামীলীগ নেতা জনাব মাহবুবুল হক হানিফ,ধর্মসচিব মহোদয়,অন্যান্য এমপি মহোদয় গন ও আমাদের হজ্জ্ব প্রশাসনিক দলের সদস্যরা সবাই হাজির।
আমরা হুজুরকে অনুরোধ করলাম মেনাজাত পরিচালনার জন্য। হুজুর লম্বা একটা মোনাজাত করলেন। তার প্রায় প্রতিটি শব্দই এখনো আমার মনে আছে। চুম্বক অংশটুকু শেয়ার করছি।
উনি তার বিশেষ উচ্চারনে বললেন, ইয়া মাবুদ এই আরাফার ময়দানে আর কোনদিন আসতে পারব কিনা জানিনা। মাবুদ আপনি বিভিন্ন উছিলায়,দয়া করে মায়া করে আপনার বান্দাকে ক্ষমা করেন। ঈমান, আমল আর ক্ষমা আর আপনার দয়া ছাড়া পার হওয়ার পথ নেই।
উনি যোগ করলেন মাবুদ আমার ঈমানের বলিয়ানে পার হওয়ার ভরসা নাই। আমলে ঘাটতি, ত্রুটি, গাফিলতি সীমাহীন। তা দিয়েও পার হতে পারবোনা। মাবুদ বাকী থাকে আপনার দয়া,রহমত আর ক্ষমা। আর আপনার রহমত ও ক্ষমার জন্য এর চেয়েও ভাল কোন জায়গা, সময় ও মুহুর্ত আমাদের জীবনে আর আসবে কিনা জানিনা মাবুদ।
মাবুদ আপনি কোনভাবে মোনাজাত শেষের আগেই বোঝান আপনি আমাদের ক্ষমা করেছেন। এমন ভাষায় ভংগিতে এতটা সমর্পিত হয়ে দেশ বরেন্য বয়োবৃদ্ধ এই আলেম কান্নাকাটি করতে থাকলেন যে সবাইকে তা ছুঁয়ে গেল। সবাই ভেউ ভেউ করে নিজেকে নিজেদের পরিচয় ভুলে কান্না শুরু করলেন। দোর্দন্ড প্রতাপের মন্ত্রী, দুদে আমলা, ডাকসাইটে জেনারেল, পুলিশ কর্মকর্তা, বড় পেশাজীবি সবাই নিজেদেরকে ভুলে গিয়ে আল্লার বান্দা হয়ে, গোলাম হয়ে ভেউ ভেউ করে উনার সাথে কাঁদা শুরু করলেন।
উনি বলতেই থাকলেন মাবুদ সময় শেষ হয়ে যাচ্ছে, সূর্যাস্ত আসন্ন, এখনই মাগরিবের আযান হবে। আপনি আমাদের বোঝান আপনি আমাদের ক্ষমা করেছেন। হঠাৎ করে মনে হল সেই উষ্ণ মরুতে হঠাৎ এক পসলা সমুদ্রের শীতল হাওয়া বয়ে গেল আমাদের মজলিসে। উনি কান্না থামালেন। বলতে থাকলেন আল্লাহ্ আকবার, আলহামদুলিল্লাহ্, ওয়ালিল লাহিল হাম্দ।
আমাদের মত পাপী তাপী বান্দাদেরও মনে হল কিছু একটা হল। অনেকেই খুশীতে কেঁদে ফেললেন। আরো অনেকেরই একই অবস্থা।
হুজুরকে একদিন আমার অফিসে লাঞ্চ করতে করতে প্রশ্ন করলাম হুজুর পাপী বান্দা আমি। ঈমান আমলে জোর নেই। ইবাদত বন্দেগীও তেমনভাবে করতে পারিনা, দুনিয়াকেও ভুলতে পারিনা। নামাজে দাঁড়ালেই কত জাগতিক কত কথা মনে হয়। উনি স্বভাব সুলভ স্মিত হাস্যে বললেন চিন্তুা করবেন না। মাবুদের রহমতের আশা থেকে নিরাশ হবেন না। আমরা শেষ নবীর উম্মত, আমরা বিরাট সৌভাগ্যবান। সারাজীবনে যদি আপনার একটি ভাল কাজ, একটি সেজদাও আল্লাহ কবুল করেন তো আপনি কামিয়াব।
হজ্জে যাওয়ার আগে হুজুরকে প্রশ্ন করেছিলাম হুজুর কাবা শরীফ প্রথম দর্শনেই নাকি মনোবাসনা পূর্ণ হয়। রাব্বুল আলামিনের কাছে কি চাইব।হুজুর বলেছিলেন ক্ষমা আর দয়া। বললাম আর কিছু?
উনার একটি গভীর শীতল,শান্ত,স্মিত দৃষ্টি আছে, সহ্য করা সহজ নয়। অনেকক্ষন আমার দিকে গভীরভাবে তাকিয়ে থেকে বললেন দোয়া করবেন “হে আমার রব সারাজীবনে একটি সিজদাও যেন আপনার মনের মত করে দিতে পারি,যেন কবুল হয়”
ফলো করার চেষ্টা করি হুজুরের সে উপদেশ। আরাফাতের ময়দানে মাগরিবের নামাজের ঠিক প্রারম্ভে একটুকরো পাথরের উপর কায়মনবাক্যে একটি দীর্ঘ সিজদা দেবার চেষ্টা করলাম। মনে হল ভীষন একটা তৃপ্তি, একটা শীতলতার অনুভূতি পেলাম।
আজ ৯ জিলহজ্জ। ইচ্ছে ছিল বউ, বাচ্চা সহ হজ্জে যাব। আরাফাতের ময়দানে গিয়ে আরেকটি সিজদা দিব। হয়নি। নিশ্চয়ই বাব্বুল আলামিন আমাদের প্রার্থনা কবুল করবেন। আজ না হয় আরেকদিন।আমার রব আমার উপর বরাবরই ক্ষমাশীল, দয়াশীল। মনে প্রাণে চেয়েছি কিন্তু আল্লাহ নিরাশ করেছেন,আমি পাইনি এমন একটি ঘটনাও ঘটেনি।কখনো সাময়িক ভাবে না পেলে পরে আরো বেশী পেয়েছি,যার যোগ্য আমি নই।
নিশ্চয়ই আমার রব আমাদেরকে স্ব-পরিবারে একসাথে মক্কা, মদীনা আরাফায় হাজির হয়ে সেজদার সুযোগ করে দিবেন। গলা খুলে বলব লাব্বাইক, আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হামদা ওয়াননিয়ামাতা লাকা ওয়াল মুলক, লা শারিকা লাকা।ততদিন বাঁচিয়ে রেখ মাবুদ।
পবিত্র হজ্জের উছিলায় পরোয়ার দিগার এই গুনাহগারকে ক্ষমা করুন,স্ত্রী কন্যা,পুত্র পরিজন শিক্ষক,বন্ধুবান্ধব,স্বজন সহ সকলকে ক্ষমা করুন,হিদায়েত দিন।বাবা মা সহ সকল কবরবাসীদের কবর আজাব মাফ করুন, তাদের কবরকে জান্নাতের অংশ বানিয়ে দিন,ইহকাল পরকালের মংগল দান করুন আমাদের সকলের।
আমাদেরকে করোনা থেকে আশু শিফা দান করুন,নেক মনোবাসনা পূরণ করুন,বিশ্ববাসীকে মহামারি থেকে মুক্তি দিন, আমিন।

লেখক –
অতিরিক্ত ডিআইজি
এন্টি টেরোরিজম ইউনিট
সদর দপ্তর, বাংলাদেশ পুলিশ


এ খবর টি সোস্যাল মিডিয়াতে এ পোষ্ট করুন

এ জাতীয় আরও খবর




© All rights reserved © 2013-2022