1. admin@manirampurprotidin.com : admin :
  2. hnurul146@gmail.com : nurul :
  3. titonews24@gmail.com : Tito :
শিরোনাম :
কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মণিরামপুরে সাংবাদিক পুত্র মাহির গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ মণিরামপুরে ইকবালকে কমিটি গঠন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ : রোহিতার আহ্বায়ক বহিষ্কার মণিরামপুরে ২দিন ব্যাপি ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার শুভ উদ্বোধন মণিরামপুরে গ্রাম ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় স্কুল ছাত্রীর হাতে পঁচন ।। আদালতে মামলা মণিরামপুরে সাবেক অধ্যক্ষ মাওলানা বজলুর রহমানের ইন্তেকাল আয়েবাপিসি’র সাধারন সম্পাদক বকুল খানকে যুক্তরাজ্যে বিভিন্ন সংগঠনের সংবর্ধনা সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ সচিবের প্রকাশ্যে ঘুষ গ্রহন মণিরামপুর জুয়েলারী সমিতি পক্ষ থেকে কাউন্সিলর বাবুলাল চৌধুরীকে সংবর্ধনা মণিরামপুরের শীর্ষ ব্যবসায়ী রতন পালের স্ব-পরিবারে ভারত পাড়ি! কিন্তু কেন ?

হাঁস পালনে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে রাজগঞ্জের বিদেশ ফেরত যুবক মাসুদ রানা

  • আপডেট: শনিবার, ৮ আগস্ট, ২০২০
  • ৬৭৮ দেখেছেন

হেলাল উদ্দিন, রাজগঞ্জ থেকে ।।
মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জ থানাপাড়ার বাসিন্দা মাসুদ রানা (৪০)। তিনি ছাত্র জীবন শেষ করে বিদেশ গিয়েছিলেন। ১০ বছর বিদেশ থেকে বাড়ী এসে বেকার জীবনের অভিশাপ থেকে মুক্তি পেতে ৩ বছর আগে গড়ে তোলেন মেসার্স রানা এন্ড ব্রাদার্স নামের এক হাঁসের খামার। মাসুদ রানা ও তার ৩ ভাই মিলে এ হাঁসের খামারে হাঁস নিয়মিত পরিচর্যা করছেন।
মাসুদ রানা বলেন, মানুষের ইচ্ছা শক্তি বহুদুর নিয়ে যেতে পারে। আমরা প্রথমে অল্প কিছু হাঁসের বাচ্ছা এনে অল্প পরিসরে খামারের কার্যক্রম শুরু করি। তারপর থেকে এ পর্যন্ত। বর্তমানে আমার মেসার্স রানা এন্ড ব্রাদার্স খামারে উন্নত জাতের বেলজিং, খাকি ক্যাম্বেল ছোট-বড় মিলিয়ে মোট ১১ হাজার হাঁস রয়েছে। এখান থেকে দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় হাঁসের বাচ্ছা ও ডিম সরবরাহ করা হয়।
এই হাঁসের খামারটি স্থাপন করা হয়েছে রাজগঞ্জ থানাপাড়ার পাশে অপরূপ সৌন্দর্য্যে ভরা ঝাঁপা বাওড় পাড়ে। বর্তমানে এই তারুণ্য উন্মুক্ত খামারে দুই পর্যায়ে হাঁস রয়েছে। এ খামারের হাঁসের বাচ্চাদের খাদ্য হিসেবে প্রথমে ভেজানো মুড়ির সাথে ওষুধ ও পরে ফিড দেওয়া হয়।
স্থানীয়রা বলেন, এই এলাকায় হাঁসের খামার করায় পুরো এলাকায় সাড়া ফেলেছে। হাঁস পালন করে মাসুদ রানা একজন তারুণ্যের দৃষ্টান্ত প্রতীক হয়েছে।
কী উদ্দেশ্যে করেছেন এই হাঁসের খামার, এই প্রশ্নের উত্তরে মাসুদ রানা বলেন, বিদেশ থেকে এসে বেকার জীবন কাটাচ্ছিলাম। তখন মনে মনে ভাবলাম, বেকার জীবনে না থেকে কিছু করা যায় কি-না। তখন হাঁসের খামার করার কথা চিন্তা করেই কাজে নেমে পড়লাম। বর্তমানে আমি একজন খামারি হিসেবে সফল এবং দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখার জন্য আমার এই ক্ষুদ্র প্রয়াস। আমার অবসর সময়কে কাজে লাগাতে পারছি।
তিনি আরো জানান, এই খামারে আমরা ৪ ভাই সহ এলাকার কিছু যুবকেরও কর্মসংস্থান করতে পেরেছি। এটাই আমাদের কাছে বড় কিছু।
মণিরামপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আবুজার সিদ্দিকী নিয়মিত এই খামারটি দেখাশোনা করছেন।তিনি বলেন, বর্তমান সরকার বেকারত্ব দূর করার জন্য নানামুখী কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে যুবকদের উৎসাহিত করছে। সে ক্ষেত্রে মাসুদ রানার হাঁসের খামার একটি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত। কেবল সরকারি চাকরির আশা না করে, এভাবে আত্মপ্রত্যয়ী অনেকেই কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যম হতে পারে।


এ খবর টি সোস্যাল মিডিয়াতে এ পোষ্ট করুন

এ জাতীয় আরও খবর




© All rights reserved © 2013-2022