1. admin@manirampurprotidin.com : admin :
  2. hnurul146@gmail.com : nurul :
  3. titonews24@gmail.com : Tito :
শিরোনাম :
কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মণিরামপুরে সাংবাদিক পুত্র মাহির গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ মণিরামপুরে ইকবালকে কমিটি গঠন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ : রোহিতার আহ্বায়ক বহিষ্কার মণিরামপুরে ২দিন ব্যাপি ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার শুভ উদ্বোধন মণিরামপুরে গ্রাম ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় স্কুল ছাত্রীর হাতে পঁচন ।। আদালতে মামলা মণিরামপুরে সাবেক অধ্যক্ষ মাওলানা বজলুর রহমানের ইন্তেকাল আয়েবাপিসি’র সাধারন সম্পাদক বকুল খানকে যুক্তরাজ্যে বিভিন্ন সংগঠনের সংবর্ধনা সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ সচিবের প্রকাশ্যে ঘুষ গ্রহন মণিরামপুর জুয়েলারী সমিতি পক্ষ থেকে কাউন্সিলর বাবুলাল চৌধুরীকে সংবর্ধনা মণিরামপুরের শীর্ষ ব্যবসায়ী রতন পালের স্ব-পরিবারে ভারত পাড়ি! কিন্তু কেন ?

চার্জসীটভুক্ত হলেও প্রতিমন্ত্রীর ভাগ্নে সুবাদে বহাল তবিয়তে মণিরামপুরের ভাইস চেয়ারম্যান!

  • আপডেট: শুক্রবার, ২ অক্টোবর, ২০২০
  • ৪১৬ দেখেছেন

বিশেষ প্রতিনিধি।।
যশোরের মনিরামপুর উপজেলায় ৫৪৯ বস্তা ত্রাণের চাল চুরি মামলায় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চুর বিরুদ্ধে ডিবি পুলিশ আদালতে চার্জসীট দাখিল করলেও দুই পদেই এখনও বহাল রয়েছেন। স্থানীয় সরকার বিভাগের যশোরের উপ-পরিচালক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদের বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দিলেও যুবলীগের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা না নেওয়ায় জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।আদালত সূত্রে জানাযায়, গত ২৭ সেপ্টেম্বর ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সোমেন দাস চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এই অভিযোগপত্র দাখিল করেন। তবে ভাইস চেয়ারম্যান এলাকায় প্রকাশে ঘুরে বেড়ালেও অভিযোগপত্রে তাকে পলাতক দেখানো হয়েছে।
মামলায় অভিযুক্ত অন্য ব্যক্তিরা হলেন মনিরামপুর উপজেলার বিজয়রামপুর গ্রামের আবদুল্লাহ আল মামুন, তাহেরপুর গ্রামের শহিদুল ইসলাম, জুড়ানপুর গ্রামের জগদীশ দাস, আবদুল কুদ্দুস ও খুলনার দৌলতপুর মহেশ্বরপাশা গ্রামের ফরিদ হাওলাদার।
অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, মণিরামপুর সরকারী খাদ্য গুদামের ত্রাণের চাল ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম কুমার চক্রবর্তী বাচ্চু বেশি মুনাফার লোভে কালোবাজারির মাধ্যমে বিক্রি করেন। যার মূল্য ছিল ৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা। উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু প্রথমে ৪ লাখ টাকা নেন এবং পরে আরও ৮০ হাজার টাকা নিয়েছেন।
এদিকে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও বহিষ্কার বা আটক না হওয়ায় জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রীর ভাগ্নে হওয়ার সুবাদে পুলিশ তাকে আটক করছে বলে স্থানীয়দের ধারনা।
অপরদিকে প্রতিমন্ত্রীর প্রভাবে স্থানীয় সরকার বিভাগ ও যুবলীগ এখনও পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি বলে মন্তব্য উঠেছে।
জেলা গয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সৌমেন দাস বলেন, অভিযুক্ত ছয়জনের মধ্যে পাঁচজন গ্রেপ্তার হয়েছেন। তাঁরা সবাই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। শুধু উত্তম চক্রবর্তী পলাতক রয়েছেন। তাঁকে ধরতে চেষ্টা চলছে। যে কোন সময় তাকে গ্রেফতার করা হবে।
স্থানীয় সরকার বিভাগ যশোরের উপপরিচালক হুসাইন শওকত বলেন, কোনো জনপ্রতিনিধি মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি হলে আইন অনুযায়ী তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। কিন্তু উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তীর চার্জশিটভুক্ত হওয়ার বিষয়টি এখনো নজরে আসেনি। তবে, আমরা বিষয়টি জেনেছি, দ্রুতই এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


এ খবর টি সোস্যাল মিডিয়াতে এ পোষ্ট করুন

এ জাতীয় আরও খবর




© All rights reserved © 2013-2022