1. admin@manirampurprotidin.com : admin :
  2. hnurul146@gmail.com : nurul :
  3. titonews24@gmail.com : Tito :
শিরোনাম :
হাইকোর্টের নির্দেশে কেশবপুরে অবৈধ “রোমান ব্রিকস” ভেঙ্গে দিল প্রশাসন মাদ্রিদে হবিগঞ্জবাসীর মিলন মেলায় মুখরিত লাভপিয়েছ মণিরামপুরের জুড়ানপুর বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষককে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষরে বাঁধা মালিতে জাতিসংঘ শান্তিপদক পেলেন বাংলাদেশের ১৩৯ জন শান্তিরক্ষী কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মণিরামপুরে সাংবাদিক পুত্র মাহির গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ মণিরামপুরে ইকবালকে কমিটি গঠন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ : রোহিতার আহ্বায়ক বহিষ্কার মণিরামপুরে ২দিন ব্যাপি ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার শুভ উদ্বোধন মণিরামপুরে গ্রাম ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় স্কুল ছাত্রীর হাতে পঁচন ।। আদালতে মামলা মণিরামপুরে সাবেক অধ্যক্ষ মাওলানা বজলুর রহমানের ইন্তেকাল

মণিরামপুরের হারিয়ে যাওয়া কৃতি সন্তানের নাম এ্যাড.নুরুল ইসলাম (এমপিএ)

  • আপডেট: বুধবার, ২১ এপ্রিল, ২০২১
  • ২৯৩ দেখেছেন

শহিদুজ্জামান মিলন।।
১৯৭০ সালের নির্বাচনে মনিরামপুর পূর্বাংশের প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগের এ্যাড.নুরুল ইসলাম। তিনি পঞ্চাশের দশকে বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে সাড়া দিয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। তারপর বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে নিজেকে নিয়োজিত রাখেন।
১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর ডাকে স্বাধীন বাংলা সংগ্রাম কমিটি গঠনের নির্দেশ আসলে মনিরামপুরে এ্যাড.নুরুল ইসলামের নির্দেশনায় নজরুল ইসলামকে (হাজরাকাঠি) আহবায়ক করে পাঁচ সদস্যের সংগ্রাম কমিটি গঠিত হয়।অন্য সদস্যরা ছিলেন ডাঃনওশের আলী (জালঝাড়া), আনোয়ার হোসেন (হুগলা ডাঙ্গা), মাষ্টার নওশের আলী (হানুয়ার), নিছার আলী মুন্সী (কাশিপুর)।
মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে,সেই উত্তাল পরিস্থিতিতে তিনি ভারতে গমন করেন। ভারতের চাঁপাবাড়িয়া যুবশিবিরে উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এলাকার যুবকদের মুক্তিযুদ্ধে রিক্রুট ও তদারকি করতেন। বিভিন্ন সময় দেশে এসে মুক্তিযোদ্ধাদের নির্দেশনা দিতেন।দেশ স্বাধীনের পর তিনি গণপরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন।স্বাধীন বাংলাদেশের সংবিধান রচনায় তার অবদান রয়েছে।
তাছাড়া ১৯৬৮ সালে ১৮ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু সহ ৩৫ জনকে আসামি করে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা দায়ের করা হয়।এ্যাড.নুরুল ইসলাম এই মামলার অন্যতম আইনজীবী ছিলেন। তাছাড়া তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় আইনজীবী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
এই বর্ষীয়ান রাজনীতিক মনিরামপুর উপজেলার বাঙালি পুর গ্রামে ১৯২৭ সালের অক্টোবরে জন্মগ্রহণ করেন।জন্মের পূর্বেই বাবাকে হারান।ছোট বেলায় সীমাহীন দারিদ্র্যতার সঙ্গে সংগ্রাম করেছেন। যশোর এম এম কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক, কলকাতা ইসলামিয়া কলেজ থেকে বিএ এবং বাঁকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে আইন শাস্ত্রে ডিগ্রী নেন।তিনি মেধাও কঠোর অধ্যবসায় দ্বারা নিজেকে অধিষ্ঠিত করেছেন অনন্ত উচ্চতায়।
তার সহধর্মিণী মরিয়ম বেগম। তিনি তিন পুত্র ও চার কন্যা সন্তানের জনক।২০০৬ সালের ৭ জুলাই মনিরামপুরের বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ পরলোকগমন করেন।

তথ্য সূত্রঃ
একাত্তরের রণাঙ্গন (যশোর সাতক্ষীরা)
মুহাঃ আবুল কালাম আজাদ


এ খবর টি সোস্যাল মিডিয়াতে এ পোষ্ট করুন

এ জাতীয় আরও খবর




© All rights reserved © 2013-2022