1. admin@manirampurprotidin.com : admin :
  2. hnurul146@gmail.com : nurul :
  3. titonews24@gmail.com : Tito :
শিরোনাম :
হাইকোর্টের নির্দেশে কেশবপুরে অবৈধ “রোমান ব্রিকস” ভেঙ্গে দিল প্রশাসন মাদ্রিদে হবিগঞ্জবাসীর মিলন মেলায় মুখরিত লাভপিয়েছ মণিরামপুরের জুড়ানপুর বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষককে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষরে বাঁধা মালিতে জাতিসংঘ শান্তিপদক পেলেন বাংলাদেশের ১৩৯ জন শান্তিরক্ষী কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মণিরামপুরে সাংবাদিক পুত্র মাহির গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ মণিরামপুরে ইকবালকে কমিটি গঠন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ : রোহিতার আহ্বায়ক বহিষ্কার মণিরামপুরে ২দিন ব্যাপি ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার শুভ উদ্বোধন মণিরামপুরে গ্রাম ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় স্কুল ছাত্রীর হাতে পঁচন ।। আদালতে মামলা মণিরামপুরে সাবেক অধ্যক্ষ মাওলানা বজলুর রহমানের ইন্তেকাল

মণিরামপুরের সেই প্লাষ্টিক কারাখানাটি বন্ধ করে দিলো প্রশাসন

  • আপডেট: সোমবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২১
  • ২০২ দেখেছেন

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি॥
যশোরের মনিরামপুর পৌরশহরের মহাদেবপুরে জনবসতি এলাকায় গড়ে উঠা প্লাষ্টিক কারখানাটি অবশেষে বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন। সোমবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ জাকির হাসানের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র, জেলা প্রশাসকের অনুমতিপত্র না থাকাসহ নানাবিধ অনিয়মের দরুন বিশ্বাস প্লাষ্টিক কারখানা বন্ধ করে দেন।এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।
পৌরশহরের মহাদেবপুর বটতলার পাশে আবাসিক এলাকায় বিশ্বাস প্লাষ্টিক কারখানাটি নির্মান করা হয় ২০২০ সালের মার্চ মাসে। কারখানাটিতে মূলত: প্লাষ্টিকের পুরাতন বোতল এবং বিভিন্ন পন্যসামগ্রি(প্লাষ্টিক ) মেশিনে মাড়াই করে তৈরী করা হয় প্লাষ্টিক কুচি। এসব কুচি এখান থেকে রপ্তানি করা হয় দেশের বিভিন্ন বাজারে। বিভিন্ন ভাঙ্গাড়ীর দোকান থেকে তারা প্লাষ্টিকের পুরাতন বোতল এবং অন্যান্য প্লাষ্টিক সামগ্রি ক্রয় করেন। এর পর এসব প্লাষ্টিক সামগ্রি মেশিনের সাহায্যে পানি দিয়ে ওয়াশ করা হয়। পরে মাড়াই করে প্লাষ্টিকের কুচি মেশিনের মাধ্যমে শুকিয়ে বস্তাভর্তির পর রপ্তানি করা হয়। তবে কারখানাটি পরিবেশ বান্ধব নয়। কারখানার কোন বাউন্ডারী(প্রাচির) নেই। নেই কোন প্রধান গেট বা ফটক। রাস্তার পাশে খোলা আকাশের নিচে বড় বড় স্তুপ করে যত্রতত্রভাবে রাখা হয়েছে প্লাষ্টিক সামগ্রি। প্লাষ্টিক সামগ্রি যখন মেশিনের মাড়াই করা হয় তখন দূর্গন্ধে জনমানুষের চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়। কারখানার সামনে এবং আশপাশে রয়েছে বেশ কয়েকটি বসত বাড়ি। কারাখানার কোন সাইনবোর্ডও টানানো হয়নি। আবার নেই পরিবেশ অধিদপ্তরের কোন ছাড়পত্র। এছাড়াও নেই জেলা প্রশাসকের অনুমতিপত্রসহ এনবিআরের(জাতীয় রাজস্ব বোর্ড) ছাড়পত্র। বিশ্বাস প্লাষ্টিক কারখানার মালিক আবদুস সালাম জানান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার অভিযান চালিয়ে কারাখানাটি বন্ধ করে দেন। ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ জাকির হাসান জানান, পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র এবং জেলা প্রশাসকের অনুমতিপত্র না থাকাসহ বিভিন্ন অনিয়মের দরুন কারখানাটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

 


এ খবর টি সোস্যাল মিডিয়াতে এ পোষ্ট করুন

এ জাতীয় আরও খবর




© All rights reserved © 2013-2022