1. admin@manirampurprotidin.com : admin :
  2. hnurul146@gmail.com : nurul :
  3. titonews24@gmail.com : Tito :
শিরোনাম :
কেশবপুর উপজেলা চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মণিরামপুরে সাংবাদিক পুত্র মাহির গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ মণিরামপুরে ইকবালকে কমিটি গঠন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ : রোহিতার আহ্বায়ক বহিষ্কার মণিরামপুরে ২দিন ব্যাপি ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার শুভ উদ্বোধন মণিরামপুরে গ্রাম ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় স্কুল ছাত্রীর হাতে পঁচন ।। আদালতে মামলা মণিরামপুরে সাবেক অধ্যক্ষ মাওলানা বজলুর রহমানের ইন্তেকাল আয়েবাপিসি’র সাধারন সম্পাদক বকুল খানকে যুক্তরাজ্যে বিভিন্ন সংগঠনের সংবর্ধনা সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ সচিবের প্রকাশ্যে ঘুষ গ্রহন মণিরামপুর জুয়েলারী সমিতি পক্ষ থেকে কাউন্সিলর বাবুলাল চৌধুরীকে সংবর্ধনা মণিরামপুরের শীর্ষ ব্যবসায়ী রতন পালের স্ব-পরিবারে ভারত পাড়ি! কিন্তু কেন ?

মণিরামপুরে স্কুলের জমি দখল করে দোকান নির্মান

  • আপডেট: বৃহস্পতিবার, ৬ মে, ২০২১
  • ২৭১ দেখেছেন

রিপন হোসেন সাজু, মণিরামপুর থেকে।।
মণিরামপুরে দোকান ঘর বানিয়ে বিদ্যালয়ের জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে দুই প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে। উপজেলার মনোহরপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের জমি দখলে নেয়ার পর থেকেই বার বার জমি ছাড়ার তাগাদা দেয়া হলেও তাতে কর্ণপাত করছে না বলে অিবযোগ। এ নিয়ে এলাকায় দফায় দফায় শালিস বৈঠক করেও কোন প্রতিকার হয়নি। দোকান ঘর উচ্ছেদ পূর্বক বিদ্যালয়ের জমি উদ্ধারে সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হন্তক্ষেপ কামনা করেছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।
জানা যায়, উপজেলার মনোহারপুর ২৩৯ নং মৌজা ওই মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যায়লয়টি অবস্থিত। ওই মৌজার ৩৩৯ নং দাগের ১০ শতাংশ জমি ৫ নং খতিয়ানে বিদ্যালয়ের নামে হাল রেকর্ডভূক্ত হয়। কিন্তু ওই জমিতে জোর করে দোকান ঘর বানিয়ে দখলে রেখেছে মনোহরপুর গ্রামের মৃত মোবারক আলী গাজীর ছেলে ডাঃ মশিয়ার রহমান গাজী ও একই এলাকার মৃত ইসমাইল সরদারের ছেলে আহম্মদ আলী দফাদার।
এ ব্যাপারে মশিয়ার রহমান ও আহম্মদ আলীর দাবি, তারা স্কুলের জমি দখল করেনি। তারা মনোহরপুর ২৩৯ মৌজায় ৬২’র পর্চা অনুসারে সাবেক ৭০১ নং ও ৭০২ নং দাগের (এসএ দাগ) ১১ শতাংশ জমি লাল চন্দ্র হাজারীর ছেলে সতীস চন্দ্র গং-এর কাছ থেকে কেনা হয়। এরমধ্যে ৩ শতাংশ জমি বিদ্যালয়ের কাছে বিক্রি করা হয়।
তাদের কথা সূত্র ধরে মনোহরপুর তহসীল অফিসে খোঁজ নিয়ে জানাযায়, এসএ রেকর্ডভূক্ত ৭০১ ও ৭০২ নং দাগের জমির হাল দাগ নং ৩৩৭ ও ৩৩৮। যা ৩টি খতিয়ানে রেকর্ডভূক্ত হয়েছে। এরমধ্যে ২৫৯৮ নং খতিয়ানে নিজাম উদ্দীন, মজিদ গাজী, মুজিবুর রহমান, ৩৪৮১ নং খতিয়ানে প্রভাতশীল, প্রকাশ, রিজাউর রহমান এবং ৩৪৮২ নং খতিয়ানে মনোহরপুর বালিকা বিদ্যালয়ের নামে রেকর্ডভূক্ত হয়েছে। ওই সাবেক দুই দাগে (৭০১ ও ৭০২)-এর রেকর্ড অনুযায়ী হাল দাগ ( ৩৩৭ ও ৩৩৮)-এ মশিয়ার রহমান ও আহম্মদ আলীর নাম নেই।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফজলুর রহমান জানান, জমি ছাড়তে বহুবার তাদের অনুরোধ করেও লাভ হয়নি। উপরোন্ত তারা মামলার ভয় দেখাই। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাস্টার মশিয়ূর রহমান জানান, দখলদারের একাধিকবার বলা হলেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি। এজন্য তিনি সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।


এ খবর টি সোস্যাল মিডিয়াতে এ পোষ্ট করুন

এ জাতীয় আরও খবর




© All rights reserved © 2013-2022